Me And My Manipuri Things

Archive for October 2017

10169443_10205374830589894_7897478258392434083_n
মণিপুরিদের গহনা। বাইরে থেকে সরল মনে হলেও গহনার গায়ে খোদাই করা কারুকাজগুলো অনেক সুক্ষ ও জটিল । কেবলমাত্র মণিপুরি স্বর্ণকারেরাই গহনায় সুক্ষাতিসূক্ষ কারুকাজগুলো ফুটিয়ে তুলতে পারেন । গহনায় সোনা বাদে রূপা বা তামাও ব্যবহার করা হয় । কিছু গহনা এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে । নিজেদের ঐতিহ্যবাহী গহনা বাদ দিয়ে মণিপুরি নারীরা এখন বাজারের চলতি গহনার দিকে ঝুঁকে পড়েছে । ফলে স্বর্ণকারদের এখন দুঃসময় যাচ্ছে । স্বর্ণের কাজকে পেশা হিসাবে বেছে নেয়ার আগ্রহও কমে যাচ্ছে তরুনদের মাঝে।

গহনার নাম ক্রমানুসারে (উপর থেকে নীচে):

১. খৌনা নাকপি
২. তেলকা নাকপি
৩. লিকসৈ
৪. থাবাক
৫. কাঠিসুরি (হেইকুরু লিকসৈ)

Advertisements

11041828_10206212917741549_4651133089594526926_n

‘ইনচাউ’ হল মণিপুরিদের ঐতিহ্যবাহী ঘর। সুপ্রাচীন কাল থেকে মণিপুরিদের পুর্বপুরুষেরা ঠিক করে দিয়ে গেছেন তাদের উত্তরসুরিদের থাকার বাসস্থান কেমন হবে। কোথায় উঠান হবে, বারান্দা হবে, কোথায় রান্নাঘর হবে। বাড়ির বয়োজেষ্ট্যরা কোথায় থাকবেন। পুত্র কন্যাদের পুত্রবধুদের শোবার জায়গা কোথায় হবে। এমনকি বিয়ের পর মেয়েরা বাপের বাড়ি বেড়াতে এলে কোথায় থাকবে সে জায়গাও ঠিক করা আছে ।

ইনচাউ একটি অদ্ভুত সুন্দর ও সুষমভাবে সাজানো স্থাপত্যকর্ম । মুলত প্রাচীন ধর্মের দেবতাদের উপাসনাস্থলের উপর ভিত্তি করে পুরো ঘরটির নকশা সাজানো হয়েছে। মুল ঘরের একেবারে ডানদিন ঘেঁষে ‘ফামেলকা’ যেটি গৃহকর্তার জন্য বরাদ্দ। একেবারে পেছনের ঘরে যেখানে ধানের গুদাম সেখানে থাকেন সনামাহি, দেবরাজ সরালেলের পুত্র। তার পাশেই গিথানিপুঙ বা লৈমারেন । ঘরের একদম মাঝখানে ফুংগা বা ফায়ারপ্লেস থাকে। ওখানে দেবতারা মাঝে মাঝে এসে বসেন। রান্নাঘরের আগুনটি এখান থেকে নেয়াই নিয়ম। ইনচাউ ঘরটি সেহিসাবে দেবগৃহের মর্যাদা প্রাপ্ত। তাই যেকোন কারণে ঘরের কোন অংশ অপবিত্র হলে পুরো ঘরটি লেপামুছা করতে হয়, কাপড়চোপড় থালাবাসন নতুন করে ধুতে হয়। ঘরের বাইরে ঘুরে বেড়ান ধ্বংসকারী দেবতা পাহাংপা। সেকারণে বাড়ির আশপাশটা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হয় । যেকোন মণিপুরি বসতিতে গেলে এজন্য সবার আগে পরিচ্ছন্নতা চোখে পড়ে ।

কালের বিবর্তনে ঐতিহ্যবাহী এই ইনচাউ ঘর প্রায় বিলুপ্ত হবার পথে । মণিপুরি বসতিতে দু’একটা ঘর কদাচিৎ চোখে পড়ে। তার জায়গা নিয়েছে টিনশেড ঘর। কোথাও পাকাঘর। কোথাও দালানকোঠা। কিন্তু এখনও মণিপুরিদেরকে পুরোনো প্যাটার্নটি মেনেই ঘর তৈরি করতে হয় । ফামেলকা নিঙলকা গিথানিপুঙ সব ঠিক রেখেই বাড়ি বানাতে হয় ।

মণিপুরিদের ইনচাউ ঘর রক্ষায় এগিয়ে এসেছেন বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগের বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ছাত্র উজ্জ্বল সিংহ। ইনচাউ ঘরের পুরোনো প্যাটার্ন ও ঐতিহ্যিক উপাদানসমুহ ঠিক রেখে তিনি ডিজাইন করেছেন নতুন শতাব্দীর আধুনিক ইনচাউ ঘর। আধুনিক জীবনযাত্রার সাথে সঙ্গতি রেখে দোতলা ইনচাউ ঘরে যোগ করেছেন আরো কিছু অনুসঙ্গ- অধিক পরিসর, ভেন্টিলেশন, প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে রক্ষা, পয়ব্যবস্থা, ড্রেনেজ। তার ডিজাইনটি ইতিমধ্যে বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগে ‘Rethinking INCHAO: The heritage of Manipuri Dwelling’ আন্ডারগ্রাজুয়েট থিসিস হিসাবে প্রদর্শিত এবং প্রশংসিত হয়েছে।

11008525_10206212918861577_890853805318022772_n

[ ১ম ছবিটি ট্রেডিশনাল মণিপুরি ইনচাউ ঘরের ডিজাইন। ২য় ছবিতে ইনচাউ ঘরের আধুনিক ডিজাইন। ]

522209_4770143531168_2070371394_n

। নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত বিপন্ন ভাষামেলার আলোচনা সেশনে বাংলাদেশের প্রান্তিক জনপদের একটি ভাষা স্হান পেয়েছে। ভাষাটির নাম বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি। পৃথিবীর বিপন্ন ভাষাগুলোকে রক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে নিউইয়র্কে পালিত হয়েছে বিপন্ন ভাষামেলা। বিপন্ন ও বিলুপ্তপ্রায় ভাষাগুলোকে নিয়ে কাজ করা এনডেঞ্জারড ল্যাঙ্গুয়েজ এলায়েন্স (ELA) গত ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে নিউইয়র্ক পাবলিক লাইব্রেরীতে এই ভাষামেলার আয়োজন করে। বিপুল সংখ্যক আগ্রহী দর্শক, ভাষাকর্মী ও ভাষাতাত্বিকের উপস্হিতিতে ভাষামেলায় পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বিপন্ন ভাষাসমুহের প্রতিনিধিরা তাদের ভাষার পক্ষে বক্তব্য তুলে ধরেন। বাংলাদেশ থেকে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার প্রতিনিধিত্ব করেন উত্তম সিংহ। অনলাইনভিত্তিক ফেসবুক গ্রুপ বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ডিসকাশন ফোরাম (BMDF) এবং পৌরি ইন্টারন্যাশনাল এর সক্রিয় তৎপরতায় ভাষামেলায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষাকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। উল্লেখ্য বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষাকে ইতিমধ্যে UNESCO এনডেঞ্জারড ল্যাঙ্গুয়েজ ক্যাটাগরিতে তালিকাভুক্ত করেছে।

উত্তম সিংহ তার বক্তব্যে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার বৈশিষ্ঠ্য এবং অপরাপর ভাষাসমুহের সাথে এই ভাষার তুলনামুলক চিত্র তুলে ধরেন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন ভাষভিত্তিক এথনোলোগ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে বাংলাদেশে প্রায় ৪০,০০০ ভাষিক সংখ্যালঘু বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষায় কথা বলেন। এছাড়া ভারতের আসাম ত্রিপুরা ও মণিপুরে ৩৬০,০০০ বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি বাস করে। ব্যবহারিক চর্চার অভাব, আঞ্চলিক বৃহৎ ভাষাসমুহের প্রভাব, রাস্ট্রিয় উদাসীনতা ইত্যাদি নানান কারণে ভাষাটির অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়েছে। তবে গত কয়েক দশকে এই ভাষায় উল্লেখযোগ্য পরিমাণ সাহিত্যকর্ম রচিত হয়েছে, প্রকাশিত হয়েছে শতাধিক পত্রপত্রিকা। এছাড়া অনলাইনে নানান ব্লগ, ওয়েবসাইট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাষাটির চর্চা গড়ে উঠছে। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার একটি অনলাইন উইকিপিডিয়াও রয়েছে। দীর্ঘ আন্দোলনের পর আসাম ও ত্রিপুরায় শিক্ষার প্রাথমিক স্তরে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষা চালু হয়েছে। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার দুইটি উপভাষা (মাদইগাঙ ও রাজারগাঙ) বিষয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় উত্তম সিংহ বলেন মাদইগাঙ উপভাষায় তিব্বত-বর্মী শাখার মণিপুরি মৈতৈ ভাষার প্রভাব এবং রাজারগাঙ উপভাষায় ভারতীয়-আর্য ভাষাসমুহের প্রভাব লক্ষ্যনীয়। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরিদের সংস্কৃতি চর্চার বিষয়েও তিনি আলোকপাত করেন। মণিপুরি সংস্কৃতি ও মণিপুরি নৃত্যকে জনপ্রিয় করতে নৃত্যগুরু বিপিন সিংহের অবদানের কথা তিনি তুলে ধরেন।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষার উপর এক ঘন্টার অধিবেশন শেষে উপস্হিত দর্শক ও ভাষাবিদদের নানান প্রশ্নের জবাব দেন উত্তম সিংহ। উপস্হিত প্রতিক্রিয়ায় লেখক ভাষাবিদ ড্যানিয়াল কাফম্যান বলেন, প্রাথমিক পর্যবেক্ষনে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি ভাষাটিকে তিব্বত-বর্মী ও ভারতীয়-আর্য ভাষার সেতুবন্ধন বলে দৃশ্যমান হয়। ভাষাটি বিশ্বের অন্যতম বৈশিষ্টপুর্ণ ভাষা হিসাবে বিবেচিত হতে পারে উল্লেখ করে তিনি ভাষাটি সংরক্ষনের উপর গুরুত্ব দেন। তিনি জানান ভাষাটি এনডেঞ্জারড ল্যাঙ্গুয়েজ এলায়েন্স (ELA) এর ডকুমেন্টেশন প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।

 


Blog Stats

  • 81,385 hits

RSS বরন ডাহেকুরা

  • জেন য়ারি দুহান
    জেন য়ারি এতা নিয়াম পুরানা য়ারি। লোকগাঁথা। মুলত থাইনাকার আমলর জাপান দেশে য়ারি এতা মানুর থতাত্ত থতাৎ রচিত অসেতা। জেন মহাযানী বৌদ্ধ র্দশনর ডেঙ আগো। এপেই বিশ্বাস বারো ভক্তিত্ত ধ্যান, আত্মজ্ঞান বারো আত্মপোলব্ধিরে বপিয়া গুরুত্ব দেনা অর। ‘জেন’ (Zen)ওয়াহি এগো … বিস্তারিত পড়ুন → […]
  • মার্টিন নেমলারর কবিতা আহান
    তানু যেবাকা কমিউনিস্ট ঔতারে দরিয়া নিলাগা মি কিত্তাউ নামাতেসু, কিয়া মাতলে মি’তে কমিউনিস্টগো নাগৈনায়। তানু যেবাকা শ্রমিক ইউনিয়নের মানু ঔতারে দরিয়া নিলাগা মি কিত্তাউ নাতারাসু, কিয়া মাতলে মি’তে শ্রমিকগো নাগৈনায়। থাংনাত তানু ইহুদি ঔতারে দরিয়া নেনারকা আলথক আইলা মি ইঙ্গ … বিস্তারিত পড়ুন → […]
  • অগস্ত্য
    লেরিক এহান না পাকরেসি উতাই বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ঠারর ডাঙর দিক আহার লগে উনাউনি নাসি। থেরেক থেরেক করের ঠার এহানলো ইমে এলা-কবিতা-য়ারি নাগৈ, চৌকষ গদ্যও যে ইকরানি অকরের উহান কুমারী দেবলা মুখার্জ্জী গিথানকে দেহুয়াদেসে। পয়লা পাকরলু সমেইত ভাষাতত্ব্ব বা বানান বিতর্ক … বিস্তারিত পড়ুন → […]
  • মুক্তবুদ্ধি
    ১. সময়আহাৎ নিউজফিডর বারাউগদে চেয়া হারদিন ঠুনিংশ্বা বেললু। মারুপর তালিকা উহান সিংহ সিনহাই বুজেসি। বপতাই নুয়া প্রজন্মর শৌ। তানুর য়ারিপরি চিন্তাভাবনা মনস্তত্ব চেয়া হতাশ অইলু। হারপেইলু মুঙেদে আমারতা জড়বুদ্ধি প্রজন্মআহান আইতারা। কোনতাই রাস রাখুয়ালর ফটো আকেইগ দিয়া ডাঙর অইতারা। কোনতাই … বিস্তারিত পড়ুন → […]
  • এন্ড্রয়েড মোবাইলে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি
    নুয়া মোবাইল উহান গুতাগুতি করতে গিয়া আজি অন্ধকপা হারৌ আহান লাগিল। বাংলা এনাবল করিং উনিয়া ল্যাংগুয়েজ সেটিং এ গিয়া চউরিথাং আমার ঠারর নাঙহানৌ আসে। নর্থ-ইস্ট ইন্ডিয়ার বিতরে ইমে অসমীয়া, বাংলা বারো আমার ঠারহান মাল্টিমিডিয়া মোবাইলে হমাসে। মোর মোবাইল এহার ব্র্যান্ডহান … বিস্তারিত পড়ুন → […]